10 টি ভুল যেগুলি ইন্টারনেটে করা এখনই বন্ধ করুন - InteresT EducatioN

10 টি ভুল যেগুলো আমরা ইন্টারনেটে সব সময় করে চলেছি



বর্তমানে আমরা ইন্টারনেট ইউজ করি স্মার্ট ফোন কম্পিউটার অথবা ল্যাপটপ থেকে। কিন্তু ইন্টারনেটে আমার এমন কিছু ছোট ছোট ভুল করে ফেলি যেগুলি আমরা হয়তো জানি না এবং এই ছোট ছোট ভুল গুলির জন্য অনেক বড় সমস্যা দেখা দিতে পারে।
প্রধানত আমরা অনলাইনে যে সমস্ত ছোট ছোট ভুল করে থাকি সেগুলো আমাদের এখনই করা বন্ধ করতে হবে। আর এই ছোট ছোট ভুলগুলো কখনোই আমাদের অনলাইনে করা উচিত নয় এর ফল খুবই বিপদজনক হতে পারে তাই এখনই এই ছোট ছোট ভুল গুলি করা বন্ধ করুন, ভালোভাবে জেনে নিন কি সেই ছোট ছোট ভুল।

1. http আর https এর পার্থক্য না জানা


ইন্টারনেটে ছোট ছোট ভুলের মধ্যে প্রথম ভূলটি হলো http আর https এর পার্থক্য না জানা। যখন আপনি কোন ওয়েবসাইট ওপেন করেন অথবা অনলাইন ট্রানজেকশন করেন বা ইন্টারনেটে নানা কিছু যাবতীয় কাজ করে থাকেন তখন উপরের বাঁদিকে এটি দেখতে পাবেন। http হল hyper text tranfar protocol, আর https হল hyper text tranfar protocol secure। এগুলি হল এক ধরনের প্রটোকল যেগুলি অনলাইনে ইউজ করা হয়। সবশেষে যে জিনিসটি দেখলেন 'secure' মানে আপনি যখন ইন্টারনেটে কোথাও নিজের যাবতীয় তথ্য প্রদান করবেন অথবা অনলাইন ট্রানজেকশন করবেন তখন সব সময় একটি জিনিস খেয়াল করবেন 'http' এর পরে যেন সবসময় 's' যুক্ত থাকে, অর্থাৎ 'https' হল সিকিওর ওয়েবসাইট।
যদি আপনি 'http' ওয়েবসাইটগুলিতে নিজের কোন ডিটেলস দেন বা অনলাইন রেজিস্ট্রেশন করেন বা নিজের কার্ডের ডিটেলস দেন তাহলে হ্যাকার খুব সহজেই আপনার ডিটেলস বা নথিপত্র এর অ্যাক্সেস পেয়ে যায় এবং খুব সহজে হ্যাক করে নিতে পারে তাই সব সময় ইন্টারনেটে এই জিনিসটি মাথায় রাখবেন যে আপনি সব সময় 'https' ওয়েবসাইটগুলিতে নিচের ডিটেলস বা অনলাইন ফর্ম রেজিস্ট্রেশন এগুলি করবেন।

2. ফেসবুকের অজানা ওয়েবসাইট খোলা

ইন্টারনেটে করা আপনার ভুলের মধ্যে একটি ভুল হলো ফেসবুকে কিছু অজানা ওয়েবসাইট এ আপনার ডিটেলস দিয়ে দেওয়া। হ্যাঁ ডিটেইলস! অবাক হওয়ার কিছু নেই কারণ আপনি দেখবেন যখন আপনার বন্ধুরা বা আপনার ফ্যামিলির কেউ ফেসবুকে একটি পোস্ট শেয়ার করে সেটি হল 10 বছর পর আপনি কেমন দেখতে হবেন ? বা আপনার সব থেকে কাছের মানুষটি কে ? এগুলি আপনি আপনার ডিটেইলস দিয়ে শেয়ার করে দেন। এরকম কিছু ওয়েবসাইট যেগুলোকে নিজের ফেসবুক এর সাথে এক্সেস করিয়ে সার্ভ করতে হয়। প্রধানত ওইসব ওয়েবসাইটগুলিতে ক্লিক করলে দেখা যায় কিছু পারমিশন করিয়ে নেয় সেই পারমিশন গুলি আপনি হয়তো পড়েও দেখেন না, এতে কি হয় হ্যাকাররা বা ডেভলপাররা যারা ওই অ্যাপটি কে বানিয়েছেন বা ওই ওয়েবসাইট ডেভেলপ করেছেন তারা খুব সহজে সহজে আপনার ডিটেলস পেয়ে যায় এই যেমন আপনার লোকেশন, আপনার নাম, বয়স, ঠিকানা, আপনার ফ্রেন্ডস সবকিছুই । এরপর তারা আপনার ডাটা বা তথ্য গুলি বাইরে দেশের কাছে বিক্রি করে। সাবধানে থাকুন এই সমস্ত ওয়েবসাইটগুলির থেকে। আর আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে কোন ওয়েবসাইট লগ ইন বা কোন কিছুই পার্মিশন দেবেন না ।


3. 18+ কন্টেন্ট দেখা


ইন্টারনেটে সব ধরনের মানুষ প্রধানত এখন এই ভুলটি করে থাকেন বিশেষ করে 14 থেকে 15 বছরের বাচ্চারা এই ভুলটি সব থেকে বেশি করে থাকেন তাহলে 18+ কন্টেন্ট। 18+ কন্টেন্ট বলতে আপনি হয়তো বুঝেই গেছেন আমি কী বলতে চাইছি। এমন অনেকেই রয়েছেন যারা হয়তো ভাবছেন 'Google chrome' এর 'incognito mode' অন করে অনলাইনে 18+ কন্টেন্ট দেখলে কেউ আপনাকে লোকেশন ট্র্যাক করতে পারবেন না কিন্তু আপনি ভুল ভাবছেন 'Google chrome' এর 'incognito mode' এ ও আইপি অ্যাড্রেস থাকে যার থেকে খুব সহজেই আপনাকে ট্র্যাক করা যাবে বা আপনি ধরা পড়তে পারেন। আপনি যদি 18+ হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই 'Google chrome' এ 'incognito mode' এর সাথে 'VPN' এর ইউজ করবেন। এবং আপনি যদি না জেনে থাকেন যে 'VPN' কি এবং কি করে ইউজ করতে হয় তাহলে এখানে ক্লিক করে জেনে নিতে পারেন।


4. একই ইমেইল আইডি এবং পাসওয়ার্ড এর ব্যবহার


ইন্টারনেটের আরেকটি ভুল সবাই করে থাকেন সেগুলি হল একই ইমেইল আইডি এবং পাসওয়ার্ড বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইটে ব্যবহার করা। যেমন ধরুন আপনি ফেসবুকে যে ইমেইল আইডি বা পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করছেন আবার সেই ইমেইল আইডি বা পাসওয়ার্ড দিয়ে 18+ কন্টেন্ট এর ওয়েবসাইট লগ ইন করছেন। তাহলে আপনি মস্ত বড় একটি ভুল করছেন যখন তখন আপনার ইমেইল আইডি বা পাসওয়ার্ড হ্যাক হয়ে যেতে পারে। তো আপনি সাবধানে থাকুন আর বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট বিভিন্ন ধরনের ইমেইল আইডি বা পাসওয়ার্ড ইউজ করুন এতে আপনি অনলাইনে দুনিয়ায় সিকিওর থাকতে পারবেন।


5. Two-step অথেন্টিকেশন বা ভেরিফিকেশন এর ব্যবহার না করা


Two-step অথেন্টিকেশন বা ভেরিফিকেশন হল কোন ওয়েবসাইটে বা কোন সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং প্লাটফর্মে দুই বার পাসওয়ার্ড দেওয়া। এই Two-step অথেন্টিকেশন বা ভেরিফিকেশন এর ব্যাপারে হয়তো অনেকেই জানেন না, যারা জানেন না তারা জেনে নিন আর যারা জানেন তারা এটি ব্যবহার করুন কারণ ফেসবুক বা হোয়াটসঅ্যাপের মতো বড় বড় সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং প্লাটফর্ম গুলোতে এমন অনেক ব্যক্তি রয়েছেন যাদের অনেক ব্যক্তিগত নথি পত্র বা যাবতীয় দরকারি ডকুমেন্টস থাকতে পারে সেগুলি হ্যাক হতে পারে।  কিন্তু যদি আপনি জান আপনার জিমেইল অ্যাকাউন্ট বা হোয়াটসঅ্যাপ বা ফেসবুক একাউন্ট হ্যাক না হয় তাহলে আপনি ব্যবহার করুন Two-step অথেন্টিকেশন বা ভেরিফিকেশন করা থাকে তাহলে আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক হবে না বা হ্যাকার আপনার ডেটা চুরি করতে পারবে না।


6. লাইভ লোকেশন শেয়ার করা


এই ভুলটা প্রধানত মেয়েরা করে থাকে, আপনি যখন কোথাও বাইরে যাচ্ছেন, কোথাও ঘুরতে যাচ্ছেন বা কোন দরকারী কোন কাজে আছেন তখন নিজের লাইভ লোকেশন শেয়ার করা এগুলো তো একদমই উচিত নয়, কারণ হতে পারে কেউ আপনার উপর নজর রাখছে, বা কারো আপনার প্রতি বিদ্বেষ, ঘৃণা রয়েছে কেউ আপনার উপর প্রতিশোধ নিতে চাই কোন ব্যাপারে। আপনি কোথায় যাচ্ছেন, কী করছেন, আপনার ফ্রেন্ড সার্কেল কেমন, আপনার ফ্যামিলি ব্যাকগ্রাউন্ড কেমন, আপনি কি করতে ভালোবাসেন সবকিছুর উপরে কেউ নজর রাখতে পারে। বিশেষত মেয়েদের জন্যই বলা আপনি যদি কোথাও ঘুরতে যান বা কোন বিশেষ অনুষ্ঠান বা কোন কিছুতে নিজের লাইভ লোকেশন শেয়ার করবেন না সোশ্যাল মিডিয়াতে। এছাড়া আপনি হোয়াটসঅ্যাপে স্ট্যাটাস দিতে পারেন এবং যদি আপনি নিজের লাইভ লোকেশন শেয়ার করেন তাহলে সেটি যেন ফ্রেন্ড সার্কেলের মধ্যে থাকে পাবলিক যেন না করেন এটি অবশ্যই খেয়াল রাখবেন।


7. ফ্রি ওয়াইফাই ব্যবহার


এখন সময় এতটাই খারাপ যে আমরা সেদিকেই বিশেষত যাই যেদিকে ফ্রী তে কোন জিনিস পাওয়া যায়, আপনি হয়তো দেখে থাকবেন কোন রেলওয়ে স্টেশনে, রাস্তায় বা যেকোনো কোথাও আপনি যেতে পারেন কেমন কোনো জায়গায় ফ্রি ওয়াইফাই থাকে পাসওয়ার্ড ছাড়াই। এবং এমন অনেকেই আছেন যারা এসব ফ্রি ওয়াইফাই কানেক্ট করে নেয়, এখানে বলে রাখি আপনি মস্ত বড় একটি ভুল করছেন এমন অনেক হ্যাকার বা দুষ্টু বুদ্ধি সম্পন্ন মানুষ রয়েছেন যারা এ সমস্ত পাবলিক প্লেস গুলিতে নিচের সিস্টেম থেকে ফ্রি ওয়াইফাই চালু করে দেয় এতে আপনার সিস্টেমে বা স্মার্টফোনে ভাইরাস আসতে পারে অথবা সেই হ্যাকার আপনার ফোন থেকে ডাটা চুরি করছে এই সমস্ত জিনিস থেকে সাবধানে থাকুন কোনরকম ফ্রি ওয়াইফাই ইউজ করবেন না যদি সেটি ভেরিফিকেশন করা থাকে তাহলে আপনি সেটি ব্যবহার করতে পারেন। এবং আপনি এটা জেনে নিন যেকোনো কিছুই ফ্রি হয় না বা কেউ ফ্রি তে কোন জিনিস দেয় না তার পেছনে কোন না কোন কারণ অবশ্যই থাকে সেটি খারাপ হোক বা ভাল হোক ।


8. অনলাইন ডেটিং


ইয়াং জেনারেশন এর কাছে এটি একটি চ্যালেঞ্জের জিনিস সেটি হলো গার্লফ্রেন্ড । অনেকেই হয়তো গার্লফ্রেন্ড খুঁজতে ইন্টারনেটে নেমে পড়েছেন, অনেকে তো আমার ইন্টারনেটে প্রেম ও করছেন । আপনাকে জানিয়ে রাখি যে হতে পারে আপনি প্রতারণার ফাঁদে পড়ে রয়েছেন হতে পারে অপর প্রান্তে সেই মেয়েটির বা ছেলেটির ছদ্মবেশে রয়েছে কোন প্রতারক‌ । এছাড়াও অনলাইনে কিছু ডেটিং ওয়েবসাইট বা অ্যাপ্লিকেশন আপনি পেয়ে যাবেন যেখানে আপনার নিজের কিছু ডিটেলস বা পরিচয় পত্র সেখানে প্রদান করতে হয়, বা রেজিস্ট্রেশন ফরম ফিলাপ করতে হয় তাতে আপনার জরুরি ডাটা গুলি হয়তো আপনি হ্যাকারদেরকে দিয়ে দিচ্ছেন এই সমস্ত জিনিস গুলো থেকে সাবধানে থাকুন এবং সব থেকে বেশি সাবধানে থাকুন আপনার পছন্দের মেয়েটি/ছেলেটি সম্পর্কে জানুন বিস্তারিত তারপর এগিয়ে যান ।


9. পাবলিক শেয়ার করা


এই ভুলটি ও বিশেষত মেয়েরাই বেশি করে থাকে, যখন আপনি কোন জায়গায় যান, কোথাও বেড়াতে যান নিজের প্রিয়জনের সাথে, বা নিজস্ব ও বৈবাহিক কোনো ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবি সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে শেয়ার করেন তাও আবার পাবলিক করে, শুধরে যান কারণ আপনি একটি মস্ত বড় ভুল করছেন। কারণ এমন হতে পারে যে আপনার এইসব ছবিগুলি কেউ খারাপ কোন কাজে ব্যবহার করছে বা হতে পারে কেউ আপনার এইসব ছবি গুলি নিয়ে আপনাকে ব্ল্যাকমেইল করছে তাই অনলাইনে এই সমস্ত জিনিস করা থেকে বিরত থাকুন, এবং নিজস্ব কোন ছবি পাবলিক-লি শেয়ার করবেন না।


10. ভুলভাল ওয়েবসাইট লগ ইন করা


এটি একটি কমন মিসটেক বা ভুল ভুল সবাই করে থাকে আপনি দেখবেন যখন আপনি কোন ওয়েব সাইটে ঢুকবেন তখন সেটি রিডাইরেক্ট হয়ে অন্য একটি ওয়েব পেজ খুলে যাবে এবং সেখানে আপনার ইমেইল এড্রেস পাসওয়ার্ড দিতে বলবে সেখানে অনেকে নিজের ইমেইল এড্রেস দিয়ে দেন কিন্তু আপনাকে বলে রাখি এরকম ভুলভাল ওয়েবসাইটে লগইন করা এক বিশাল বোকামো এতে ওয়েব ডেভলপার বা হ্যাকার হয়তো আপনার ইমেইল এড্রেস পেয়ে যাবে এবং আপনার পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনার সমস্ত ডাটা চুরি করবে । বন্ধুরা এরকম ধরনের ওয়েবসাইট থেকে বিরত থাকুন।




অনলাইন আমাদের অনেক উপকার করে এবং এমন অনেক মানুষ আছে যারা ইন্টারনেটের মাধ্যমে ইনকাম করেন এক কথায় বলতে গেলে ইন্টারনেট কিছু কিছু মানুষের রুজি-রোজগার এবং সেই ইন্টারনেটে যদি আপনাকে প্রতারণার শিকার হতে হয় তো বন্ধুরা উপরে দেব এই সমস্ত টিপস গুলো ফলো করুন এবং এগুলি আপনাদের বন্ধু বা পরিবারের সাথে শেয়ার করুন এবং যদি আপনার কিছু জানার থাকে আপনি যদি কিছু জানতে চান তাহলে অবশ্যই কমেন্টে আমাকে জানাতে পারেন অথবা আমাকে ফলো করতে পারেন টুইটার অথবা ইনস্টাগ্রম এ এছাড়াও আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক এবং ফলো করুন এ রকমই নতুন নতুন শিক্ষামূলক এবং প্রযুক্তিগত তথ্য পেতে।

No comments